BBC navigation

গ্রেফতারের পর রিমান্ডে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের ৯ জন

সর্বশেষ আপডেট রবিবার, 25 অগাষ্ট, 2013 10:22 GMT 16:22 বাংলাদেশ সময়
130825101646_ansarullah_bangla_team_304x171_bbc_nocredit.jpg

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা থেকে একটি জঙ্গি সংগঠনের ৯ জনকে আটক করার পর তাদেরকে রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।

শনিবার সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে আনসারুল্লাহ বাংলা টিম নামক ঐ জঙ্গি সংগঠনটির সদস্যদের গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশ।

রোববার তাদেরকে গণমাধ্যমের সামনে উপস্থিত করে একটি সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

কিছুদিন আগেই ঐ সংগঠনটির প্রধানসহ ৩১ জন সদস্যকে দক্ষিণাঞ্চলীয় জেলা বরগুনা থেকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব।

সম্প্রতি বাংলাদেশে একাধিক জঙ্গি সংগঠনের সদস্যদের আটক করা হয়, যে সংগঠনগুলো সম্পর্কে এর আগে জানা যায়নি।

"থানা বা অন্য যেসব প্রতিষ্ঠানে অস্ত্র থাকে, সেসব স্থানে হামলা চালিয়ে তারা অস্ত্র নিয়ে তাদের সর্বশেষ আক্রমণ করবে। এমনটা আমরা তাদের কাছে লিপিবদ্ধ পেয়েছি"

গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম

পুলিশ বলছে, এই সংগঠনটি বিভিন্ন থানাসহ বিভিন্ন সরকারী প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে অস্ত্র সংগ্রহ করে সশস্ত্র বিপ্লবের পরিকল্পনা করছিল।

আটককৃতদের কাছ থেকে অস্ত্র এবং গ্রেনেড চালানোর নির্দেশনা সম্বলিত হাতে লেখা কিছু বই উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম।

"থানা বা অন্য যেসব প্রতিষ্ঠানে অস্ত্র থাকে, সেসব স্থানে হামলা চালিয়ে তারা অস্ত্র নিয়ে তাদের সর্বশেষ আক্রমণ করবে। এমনটা আমরা তাদের কাছে লিপিবদ্ধ পেয়েছি" বলেন মি. ইসলাম।

যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ভবনে বোমা হামলার পরিকল্পনাকারী বাংলাদেশী তরুণ কাজী নাফিসও এই সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত ছিল বলে পুলিশ জানায়।

এর আগে বরগুনা থেকে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের প্রধান মুফতি জসিমউদ্দিন রাহমানিসহ ৩১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পুলিশ বলছে, এই দলটি আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আল কায়েদার অনুসারী।

আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সামরিক শাখার প্রধান বর্তমানে পাকিস্তানে রয়েছেন বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

"আমার কাছে মনে হয়, জঙ্গি সংগঠনের এই পুনর্গঠন এবং নতুন করে শক্তি সঞ্চয়ের চেষ্টা থেমে থাকবে না। এটি অব্যাহত থাকবে"

নিরাপত্তা বিশ্লেষক আব্দুর রব খান

গোয়েন্দা পুলিশ কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম বলেন, আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী সংগঠনের আদলেই এই সংগঠনটি তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছিল।

এই সংগঠনটির সদস্যদের কাছে পাওয়া কাগজপত্রে দেখা গেছে, মূলত: চারটি ধাপে তারা তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছিল, যার সর্বশেষ ধাপ হচ্ছে ব্যাপকভাবে হত্যাকাণ্ড।

কিছুদিন আগেই বগুড়া থেকে বিইএম নামের অপর একটি সংগঠনের তিনজনকে আটক করে র‍্যাব, এসময় তাদের কাছ থেকে সাব মেশিন গানসহ বেশ কিছু অস্ত্রও উদ্ধার করা হয়।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক আব্দুর রব খান বলছেন, জেএমবি প্রধানসহ আরও কয়েকজন নেতার মৃত্যুদণ্ডের পর জঙ্গি সংগঠনের তৎপরতা বিষয়টি অনেকটাই চাপা পড়ে যায়। কিন্তু এখন সেটি আবারো উঠে আসছে।

"আমার কাছে মনে হয়, জঙ্গি সংগঠনের এই পুনর্গঠন এবং নতুন করে শক্তি সঞ্চয়ের চেষ্টা থেমে থাকবে না। এটি অব্যাহত থাকবে।" বলেন মি. খান।

পুলিশ বলছে, আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের নেতারা ২০০৮ সাল পর্যন্ত জামিয়াতুল মুসলেমিন নামক একটি আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠনের হয়ে কাজ করত। ২০০৯ সাল থেকে তারা আনসারুল্লাহ বাংলা টিম নামে নতুন করে সংগঠিত হয়।

আটককৃতদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস বিরোধী ও তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা করা হয়েছে। পরে পুলিশ তাদেরকে ১০ দিনের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করলে আদালত তাদের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻