BBC navigation

'গণহত্যা'র প্রমাণ মেলেনি: হিউম্যান রাইটস ওয়াচ

সর্বশেষ আপডেট বৃহষ্পতিবার, 1 অগাষ্ট, 2013 13:34 GMT 19:34 বাংলাদেশ সময়

পুলিশের ওপর হামলা

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস্‌ ওয়াচ এক প্রতিবেদনে বলেছে, বাংলাদেশে ফেব্রুয়ারি মাস থেকে সাম্প্রতিক সময় পর্যন্ত রাজপথে বিক্ষোভের সময় দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী যে মাত্রাতিরিক্ত বলপ্রয়োগ করেছে তার প্রমাণ তারা পেয়েছেন।

বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে ১৯৭১এর মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার এবং এতে কয়েকজনের দন্ডাদেশকে কেন্দ্র করে ফেব্রুয়ারি থেকে কয়েক মাসব্যাপী সহিংস বিক্ষোভ চলে। বিশেষ করে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে জামায়াতে ইসলামীর নেতা দেলাওয়ার হোসেইন সাইদীর মৃত্যুদন্ড দেয়া হলে সারা দেশে সহিংসতা ব্যাপক আকার নিয়েছিল।

তবে মে মাসে ঢাকার মতিঝিলে শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলামীর অবস্থান কর্মসূচি ভেঙে দেবার সময় সেখানে 'গণহত্যা' চালানো হয় বলে সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো যে অভিযোগ তুলেছিল, হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বলছে তাদের অনুসন্ধানে তা ভিত্তিহীন বলে প্রমাণিত হয়েছে।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বলছে, ৫ই মে রাতে হেফাজতে ইসলামের সমাবেশে চালানো পুলিশি অভিযানে মৃতের যে সংখ্যা হেফাজত ও প্রধান বিরোধীদল বিএনপির পক্ষ থেকে করা হয় - তাদের অনুসন্ধানে তা ভিত্তিহীন প্রমাণিত হয়েছে।

বিবিসিকে মীনাক্ষি গাঙ্গুলি

হিউম্যান রাইটস্‌ ওয়াচ এক রিপোর্টে বলছে, বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধের বিচারকে কেন্দ্র করে ফেব্রুয়ারি থেকে কয়েক মাসব্যাপী বিক্ষোভের সময় নিরাপত্তা বাহিনী অতিরিক্ত বলপ্রয়োগ করেছে বলে তারা প্রমাণ পেয়েছেন, তবে শাপলা চত্বরে 'গণহত্যা'র অভিযোগ ভিত্তিহীন।

শুনুনmp3

আপনার ফ্ল্যাশ প্লেয়ারের ভার্সনটি সঠিক নয়

বিকল্প মিডিয়া প্লেয়ারে বাজান

সংস্থার দক্ষিণ এশিয়া বিভাগের কর্মকর্তা মীনাক্ষি গাঙ্গুলি বলছেন, ৫ই মে বিভিন্ন সহিংস ঘটনায় ১১ জন নিহত হবার কথা সরকার বলেছে, তবে তারা মনে করেন যে প্রকৃত নিহতের সংখ্যা তার চাইতে বেশি।

মীনাক্ষি গাঙ্গুলি বলেন, নিহতের প্রকৃত সংখ্যা পাবার জন্য তারা হাসপাতাল, এবং পুলিশের রেকর্ড পরীক্ষা করেছেন। প্রত্যক্ষদর্শী, ঘটনার শিকার, তাদের আত্মীয়স্বজন এবং সংবাদমাধ্যমের সাথেও কথা বলেছেন। বিভিন্ন ভিডিও ফুটেজ দেখেছেন।

তিনি বলেন, হেফাজতে ইসলাম তিন হাজার লোক নিহত হবার দাবি করেছিল, তবে তাদের পাওয়া তথ্যে ৫ এবং ৬ই মের ঘটনাবলীতে সব মিলিয়ে ৫৮ জনের মতো নিহত হয়েছে বলে দেখা যায়।

শুধুমাত্র ৫ই মে রাতে কতজন নিহত হয়েছিলেন বলে তারা মনে করেন - বিবিসি বাংলার এমন প্রশ্নের জবাবে মীনাক্ষি গাঙ্গুলি বলেন, ৫ই মে রাতে শাপলা চত্বরের অভিযানে ২২ জন নিহত হবার কথা তারা নিশ্চিত করতে পেয়েছিলেন, তবে পরে আরো কয়েকজনের কথা জানা গিয়েছিল।

"প্রায় ৩০ জন ছিলেন, যেগুলো ওই এরিয়াতে হয়েছে। এর মধ্যে আবার চারজন আগেকার। আমরা কাউন্ট নিয়েছি মর্গ, হাসপাতালের রেকর্ড দেখে। অনেকজনের ওপর গুলি হয়েছে কাছে থেকে।"

৪৮ পৃষ্ঠার রিপোর্টে সংস্থাটি বলছে, ১৯৭১-এর মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার এবং দন্ডাদেশকে কেন্দ্র করে যে সহিংসতা হয়েছে তাতে ফেব্রুয়ারী মাস থেকে শুরু করে কয়েক মাসে ১২ জন পুলিশসহ অন্তত ১৫০ জন লোক মারা গেছেন।

তিনি বলেন. আমরা কর্তৃপক্ষের মাত্রতিরিক্ত বলপ্রয়োগের প্রমাণ পেয়েছি এবং আমরা মনে করছি যে ওই ঘটনাবলীর একটি স্বাধীন তদন্ত করানো দরকার।

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻