পাকিস্তানের কারাগারে তালেবানদের হামলা, বহু বন্দী পলাতক

পাকিস্তানের উত্তরপশ্চিমাঞ্চল থেকে পাওয়া খবরে জানা যাচ্ছে, দেরা ইসমাইল খান শহরের একটি কারাগারে বন্দুকধারীরা সংঘবদ্ধ হামলা চালিয়ে বহু বন্দীকে মুক্ত করে নিয়েছে।

কারাগারটিতে শত শত জঙ্গি বন্দী ছিল।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত পাকিস্তান থেকে তালেবানের একজন মুখপাত্র শহিদুল্লাহ শহীদ জানিয়েছেন, হামলার পর কারাগার থেকে তিনশ' বন্দী পালিয়ে গেছে। অবশ্য এ খবর কোনও নিরপেক্ষ সূত্র থেকে নিশ্চিত করা যায়নি।

স্থানীয় সময় সোমবার মধ্যরাত থেকে হামলার সূত্রপাত।

আক্রমণের শুরু হয় দফায় দফায় বিস্ফোরণ দিয়ে।

স্থানীয় একজন বাসিন্দার বরাত দিয়ে সংবাদদাতারা বলছেন, একটি বিস্ফোরণ এতটাই জোরালো ছিল যে ওই এলাকার প্রতিটি বাড়ি কেঁপে ওঠে।

পুলিশ বলছে, এরপরই বন্দুকধারীরা রকেট-চালিত গ্রেনেড এবং মেশিনগান ব্যবহার করে টানা হামলা শুরু করে।

কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এপি বলছে, হামলাকারীরা আক্রমণের এক পর্যায়ে শ্লোগান দিচ্ছিল। এতে তারা বলছিল, আল্লাহ মহান। তালেবান দীর্ঘজীবী হউক।

শহরের কর্মকর্তারা বলছেন, তালেবানরা লাউডস্পিকার ব্যাবহার করে কারাগারে থাকা তাদের বন্ধুদের নাম ধরে ডাকছিল।

ওই কারাগারটিতে কয়েকশো জঙ্গি বন্দী অবস্থায় রয়েছে যাদের মধ্যে ৪০ জন হাই প্রোফাইল তালেবান নেতাও আছে।

প্রাদেশিক কারা অধিদপ্তরের প্রধান বার্তা সংস্থাকে জানান, কারাগারে হামলার হুমকি সম্বলিত একটি চিঠি এর আগেই কর্তৃপক্ষের হাতে এসে পৌঁছেছিল।

কিন্তু সেই হামলা এত দ্রুত হতে পারে সেটি তারা ভাবেননি।

গত বছরের এপ্রিল মাসে পাকিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় বানু এলাকায় একই রকম একটি হামলার পর শত শত বন্দী পালিয়ে যায়।

দেরা ইসমাইল খান শহরটি পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশের মূল শহর।

পাহাড় ঘেরা এই উপজাতি অধ্যুষিত এলাকাটি পাকিস্তানের একটি অন্যতম সহিংসতা-সঙ্কুল অঞ্চল।