BBC navigation

পাকিস্তানে বন্দুকধারীর গুলিতে তেহরিকের নেত্রী নিহত

সর্বশেষ আপডেট রবিবার, 19 মে, 2013 02:18 GMT 08:18 বাংলাদেশ সময়

পাকিস্তানের করাচিতে তেহরিক ই ইনসাফ পার্টির একজন জ্যেষ্ঠ নেত্রীকে হত্যা করেছে বন্দুকধারীরা। যাহরা শাহিদ হুসেইনকে তার বাড়ির সামনে মাথায় দু'বার গুলি করা হয়। নির্বাচনে সংঘর্ষের কারণে করাচিতে পুনরায় ভোট গ্রহণের প্রাক্কালে এই হত্যার ঘটনা ঘটল।

দলের নেতা ইমরান খান এই হত্যার জন্যে এমকিউএম পার্টিকে দায়ী করেছেন, যদিও দলটি অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছে।

একটি মোটরসাইকেলে করে আসা বন্দুকধারীরা তার বাড়ির সামনেই যাহরার মাথায় দুইবার গুলি করেন।

স্থানীয় একজন নেতা ফেরদৌস শামিম জানিয়েছেন, তিনি যখন বাড়ি থেকে বের হন, তিনজন বন্দুকধারী তার উপর আক্রমণ করে। তিনি এটি ছিনতাই মনে করে তার পার্সটি তুলে দেন, কিন্তু বন্দুকধারীরা তারপরেও তার মাথায় গুলি করে।

পুলিশের একজন কর্মকর্তা বলছেন, এখন পর্যন্ত যতটুকু তথ্য পাওয়া গেছে, তাতে এটি পরিকল্পিত হত্যা নাকি ছিনতাই ঘটনা, তা পরিষ্কার নয়। তবে তারা তদন্ত আর তথ্য সংগ্রহের কাজ করছেন।

করাচি থেকে বিবিসির সংবাদদাতা বলছেন, মাথায় দুইবার গুলি করা থেকে ধারণা করা হচ্ছে যে, তাকে হত্যার উদ্দেশ্যেই পরিকল্পিতভাবে এই হামলা করা হয়েছে।

যাহরা শাহিদ হুসেইন তেহরিক ই ইনসাফ দলের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন। এই হত্যাকান্ডের জন্য মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট বা এমকিউএম পার্টিকে দায়ী করেছেন দলের নেতা সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খান।

তিনি বলেছেন, এটি পুরোপুরি একটি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড এবং এমকিউএম এই ঘটনা ঘটিয়েছে।

এমকিউএম এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

এই হত্যাকান্ডের ঘটনাটি এমন সময় ঘটল যখন করাচির বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে পুনঃনির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে।

গত সপ্তাহের ভোটে সেখানে ব্যাপক কারচুপির ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ করেছে তেহরিক ই ইনসাফ। ফলে সেখানে পুনরায় ভোট গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়। করাচির বেশিরভাগ আসনেই এমকিউএম জয়লাভ করেছে।

করাচিতে প্রতিদিনই রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে, যার বেশিরভাগই রাজনৈতিক কারণে ঘটছে বলে ধারণা করা হয়।

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻