BBC navigation

বাংলাদেশে ব্লগার রাজীব হত্যার দায়ে ৫জন ছাত্র গ্রেপ্তার

সর্বশেষ আপডেট শনিবার, 2 মার্চ, 2013 15:27 GMT 21:27 বাংলাদেশ সময়
5 arrested for rajib killing

রাজীব হত্যার অভিযোগে গ্রেপ্তার ৫জন শিক্ষার্থী

বাংলাদেশে ব্লগার রাজীব হায়দারের হত্যাকারী সন্দেহে ঢাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচজন ছাত্রকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। পুলিশ বলছে, গ্রেপ্তারকৃত ছাত্ররা মি. হায়দারকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে।

ঢাকায় গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তারা জানাচ্ছেন, রাজীব হায়দারের ব্লগের লেখায় ক্ষুদ্ধ হয়ে এবং ছাত্রশিবিরের একজন নেতার প্ররোচনায় তারা পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী মি. হায়দারকে কুপিয়ে হত্যা করে।

গ্রেপ্তারকৃত পাঁচজন ছাত্রই ঢাকার বেশ পরিচিত একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। তাদের সবার বয়সই ১৯ থেকে ২৩ এর মধ্যে।

গোয়েন্দা পুলিশ জানিয়েছে, শুক্রবার রাতে ঢাকার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে এই তরুণদের গ্রেপ্তার করা হয়। শনিবার সকালে তাদের নিয়ে গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে একটি সংবাদ বিবৃতি দেওয়া হয়।

"পেছন থেকে দীপ প্রথম কোপ দেয়। তার উদ্দেশ্য ছিলো দেহ থেকে মস্তক আলাদা করে ফেলবে।"

মনিরুল ইসলাম, ডিবি পুলিশ কর্মকর্তা

বিবৃতিতে বলা হয়, এই পাঁচজন ছাত্রই নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকা অবস্থায় একে অপরের সাথে পরিচিত হন। সেখানে তাদের এক বন্ধু তাদের রাজীব হায়দারের ব্লগ 'থাবা বাবা'-র বিষয়ে জানান।

তাদের ঐ বন্ধু একসময় ছাত্রশিবিরের নেতা ছিলেন বলে পুলিশ জানায়। এরই প্রেক্ষিতে তারা ব্লগার রাজীব হায়দারকে হত্যা করার সিদ্ধান্ত নেন এবং এজন্যে বেশ কয়েকদিন তাকে অনুসরণ করেন বলেও জানান গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম।

শাহবাগে আন্দোলন শুরু হবার আগে থেকেই প্রায় এক মাস যাবৎ রাজীব হায়দারকে হত্যার জন্য এই দলটি তথ্য সংগ্রহ করেছে বলে তারা পুলিশকে জানিয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃত ছাত্রদের মধ্যে রয়েছেন ফয়সাল বিন নাঈম দীপ, মাকসুদুল হাসান অনিক, এহসানুর রেজা, নাঈম শিকদার এবং নাসিফ ইমতিয়াজ । এরা সবাই নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল এবং ব্যবসা-প্রশাসন বিভাগের ছাত্র।

এদের মধ্যে দুজনের বাড়ি ঢাকায়, বাকিদের বাড়ি ঝিনাইদহ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং চট্টগ্রামে। তারা এসব জেলার বিভিন্ন বাংলা এবং ইংরেজি মাধ্যমের স্কুল-কলেজে পড়াশোনা শেষে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয় বলে পুলিশ জানতে পেরেছে।

ব্লগার রাজীব

নিহত ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দার

পুলিশ বলছে, গত ১৫ ই ফেব্রুয়ারি মি. হায়দারকে হত্যা করার আগে তাকে শাহবাগ থেকে অনুসরণ করে তারা পল্লবীতে যায় এবং সেখানেই দীর্ঘক্ষণ অবস্থান করে। পরে তার বাসার কাছেই ছুরি এবং চাপাতি দিয়ে আঘাত করে মি. হায়দারকে তারা হত্যা করে।

"পেছন থেকে দীপ প্রথম কোপ দেয়। তার উদ্দেশ্য ছিলো দেহ থেকে মস্তক আলাদা করে ফেলবে। তবে কোপটি গলায় লাগে এবং রাজীব হায়দার দেয়ালের পাশে পড়ে যান," বলেন গোয়েন্দা পুলিশ কর্মকর্তা মি. ইসলাম।

এই ছাত্রদের পরিবারের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি এবং নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকেও এ সম্পর্কে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানানো হয়নি।

তবে বিশ্ববিদ্যালয়ে এই ছাত্রদের কয়েকজনকে চিনতেন এমন একজন ছাত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন, তিনি এ ঘটনায় হতবাক এবং তারা যে এধরণের ঘটনা ঘটাতে পারে তা তিনি কখনো ভাবতে পারেননি।

গ্রেপ্তারের পর আদালত এই ছাত্রদের সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে।

গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, এখন তারা ঐ হামলার প্ররোচণাকারী এবং পরিকল্পনাকারী ছাত্রশিবিরের নেতাকে খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে।

একই ধরনের খবর

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻