BBC navigation

দিল্লীতে গ্রেপ্তারকৃতদের ধর্ষণে জড়িত থাকার প্রমাণ মিলেছে

সর্বশেষ আপডেট রবিবার, 6 জানুয়ারি, 2013 02:54 GMT 08:54 বাংলাদেশ সময়

ভারতে ধর্ষকদের দ্রুত বিচারের দাবি

দিল্লীর একটি আদালতে সরকারি কৌঁসুলিরা বলেছেন, চলন্ত বাসে গণধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগে গ্রেপ্তারকৃত পাঁচজনের বিরুদ্ধে ঐ ঘটনায় সম্পৃক্ত থাকার প্রমাণ মিলেছে।

শনিবার আদালতে শুনানির সময় সরকারি কৌঁসুলিরা জানিয়েছেন, রাসায়নিক পরীক্ষায় ঐ পাঁচজনের কাপড়ে তরুণীর রক্ত পাওয়া গেছে।

ঐ ঘটনায় পুলিশের গাফিলতির অভিযোগ এনে তরুণীর বন্ধু টেলিভিশনে যে বক্তব্য দিয়েছেন তার ফলে দিল্লীতে নতুন করে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে।

আদালতে চাঞ্চল্যকর ঐ মামলার কৌঁসুলিরা বলছেন, চলন্ত বাসে গণধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগে যে পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, ডিএনএ ও রাসায়নিক পরীক্ষায় তাদের ঐ ঘটনায় সম্পৃক্ত থাকার প্রমাণ মিলেছে।

কৌঁসুলিরা বলছেন, বাসের চালক পুলিশের কাছে এই বলে স্বীকারোক্তি দিয়েছে যে, তাদের পরিকল্পনাই ছিল, বাসে কোন নারী উঠলে তারা তাকে ধর্ষণ করবে।

আসামিদের সোমবারের মধ্যে আদালতে হাজির করার আদেশ দিয়েছে দিল্লীর আদালত।

তবে ঐ ঘটনায় পুলিশের গাফিলতির অভিযোগ এনে নিহত তরুণীর বন্ধু একটি টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, ৪৫ মিনিটেরও বেশি সময় ধরে তারা রাস্তার পাশে পড়ে ছিলেন।

এরপর একটি পুলিশের গাড়ি এলেও তাদের কোথায় নেওয়া হবে তা নিয়ে তর্ক করে দীর্ঘ সময় পার করেন পুলিশ কর্মকর্তারা।

তবে এই বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করেছে দিল্লীর পুলিশ।

বিবেক গগিয়া নামে পুলিশের একজন কর্মকর্তা বলছেন, খবর পাওয়ার চার মিনিটের মধ্যেই পুলিশের প্রথম গাড়িটি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় এবং পরবর্তী ২৪ মিনিটের মধ্যে আহতদের হাসপাতালে নিয়ে যায়। এই সময়ের মধ্যে পাশের হোটেল থেকে একটি বিছানার চাদর এনে ঐ তরুণীকে ঢেকে পুলিশ ভ্যানে তুলে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

পুলিশ আরো বলছে, টেলিভিশনের ঐ সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে ঐ তরুণীর গোপনীয়তা ভঙ্গ করা হয়েছে কিনা, তারা সেটি তদন্ত করে দেখবে।

গত ১৬ ডিসেম্বরে ঘটে যাওয়া ঐ ঘটনা ভারতে নারীর প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি ও সহিংসতা নিয়ে ব্যাপক ক্ষোভের জন্ম দিয়েছে। আগামী ১০ জানুয়ারি এই মামলার শুনানির পরবর্তী দিন ধার্য করা হয়েছে। দিল্লী পুলিশ এরই মধ্যে ইঙ্গিত দিয়েছে যে অভিযোগপত্রে ধর্ষণ ও হত্যার দায়ে এই ছয়জন আসামির মৃত্যুদণ্ডের আবেদন করা হবে।

একই ধরনের খবর

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻