BBC navigation

কাজি নাফিসের বিচার প্রক্রিয়া শুরু

সর্বশেষ আপডেট শুক্রবার, 16 নভেম্বর, 2012 02:58 GMT 08:58 বাংলাদেশ সময়

কাজি নাফিস

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে ফেডারেল রিজার্ভ ভবনে বোমা-হামলা করার পরিকল্পনার অভিযোগে আটক বাংলাদেশী তরুণ কাজী মোহাম্মদ রেজওয়ানুল আহসান নাফিসের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছে নিউইয়র্কের ফেডারেল কোর্ট। এর ফলে তার বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক বিচার প্রক্রিয়া শুরু হলো।

দেশটির গ্র্যান্ড জুরির সদস্যদের অনুমোদন সাপেক্ষে তার বিরুদ্ধে মূলত দুটো অভিযোগ আনা হয়।

নিউইর্য়ক থেকে সাংবাদিক লাভলু আনসার বিবিসি বাংলাকে জানান, মিস্টার নাফিসের বিরুদ্ধে যে দুটো অভিযোগ হয়েছে তা হলো-ব্যাপক বিধ্বংসী আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করে হামলা চালানোর চেষ্টা এবং আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী সংগঠন আল কায়েদার সাথে সংশ্লিষ্টতার মাধ্যমে আমেরিকার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র পরিকল্পনা করা।

গ্রেপ্তারের পর আঁকা ছবি

লাভলু আনসার আরো জানান যে, ফেডারেল কোর্টের মুখপাত্র রবার্ট নারডোজা জানিয়েছেন, এই অভিযোগপত্র দাখিলের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে নাফিসের বিরুদ্ধে মামলা শুরু হলো।

তবে কাজী নাফিসের বক্তব্য জানতে কবে তাকে আদালতে হাজির করা হবে সে বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত জানা যায়নি।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশ দূতাবাস জানিয়েছে, দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে কাজী নাফিসের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও আজ পর্যন্ত তারা কোনও ধরনের অনুমতি পাননি।

এবছরের জানুয়ারি মাসে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়া একুশ বছর বয়সী কাজি নাফিসকে নিউইয়র্কে ফেডারেল রিজার্ভ ভবনে বোমা-হামলা করার পরিকল্পনার অভিযোগে গত ১৮ই অক্টোবর স্টিং অপারেশনের মাধ্যমে গ্রেপ্তার করে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই।

এরপর তার বিরুদ্ধে মামলা পরিচালনার যৌক্তিকতা আছে কিনা সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য বিষয়টি সে দেশের গ্র্যান্ড জুরিতে পাঠানো হয়।

গ্র্যান্ড জুরিতে মামলা পাঠানোর ঘটনা যুক্তরাষ্ট্রে সচরাচর ঘটে না। মূলত বিশেষ বিশেষ মামলার ক্ষেত্রে ফেডারেল কোর্ট এ ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করে থাকে।

যেসব মামলা নিয়ে পরবর্তীতে কোনো ধরনের বিতর্কের সৃষ্টির আশঙ্কা থাকে কিংবা ফেডারেল অথরিটি মামলা দায়েরের পরে হেরে গেলে সেটি তাদের জন্য প্রেস্টিজ ইস্যু হয়ে উঠতে পারে, এমন আশঙ্কার মুখেই এ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত নিতে তা গ্র্যান্ড জুরিতে পাঠানো হয় ।

গ্যান্ড জুরিতে যারা থাকেন তারা বিচার বিভাগের সাথে সম্পৃক্ত কোনো ব্যক্তি নন।

কাজি নাফিসের বাবা

সাধারণ নাগরিক এবং বিচার বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মধ্য থেকে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের বাছাই করে গ্রান্ড জুরিতে অন্তর্ভূক্ত করা হয়।

তাদেরই অনুমোদন অনুসারে বাংলাদেশী যুবক কাজি নাফিসের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠিত হলো।

এদিকে বাংলাদেশের দুতাবাসের পক্ষ থেকে কাজি নাফিসকে কনস্যুলার সুবিধের প্রস্তাব দেয়া হলেও তিনি তা প্রত্যাখান করার পর, বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে তাকে আইনগত সুবিধে দেওয়ার সম্ভাবনা অনিশ্চিত হয়ে পড়ে।

মিস্টার নাফিসকে আটকের পর এফবিআই’র কৌঁসুলিরা বলেন, মিস্টার নাফিস যোগাযোগ করেছিলেন এমনই একজন পরে এফবিআইর সোর্স হিসেবে কাজ করে এবং তাদের তথ্য সরবরাহ করে।

এরপর থেকে তাকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয় এবং ছদ্মপরিচয়ে এফবিআই’র একজন এজেন্ট বোমা বিক্রির নাম করে তার কাছে একেকটি পঞ্চাশ পাউন্ড ওজনের কুড়িটি ব্যাগ বিক্রি করে যেগুলোতে আসলে কোনো বিস্ফোরক নয়, বোমা সদৃশ কিছু বস্তু ছিল মাত্র।

মিস্টার নাফিস সেখানে এক হাজার পাউন্ড ওজনের বোমা রয়েছে বলে মনে করে এবং সেগুলোর সাহায্যে নিউইয়র্ক শহরের ফেডারেল রিজার্ভ ভবন বোমা উড়িয়ে দেয়ার পরিকল্পনা করেন।

ভবনটির সামনে থেকে তাকে আটকের সময় সে ভ্যানভর্তি সেসব নকল বোমা দিয়ে বিস্ফোরণ ঘটানোরও চেষ্টা করেন। কর্মকর্তারা বলছেন, সেখানে বিস্ফোরণের কোনো ভয়ই ছিল না।

এই ঘটনার পর এফবিআইর এ ধরনের স্টিং অপারেশন নিয়েও বিতর্ক দেখা দেয়।

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻