BBC navigation

বাপমায়ের সাথে নাফিসের প্রথম যোগাযোগ

সর্বশেষ আপডেট শনিবার, 17 নভেম্বর, 2012 19:20 GMT 01:20 বাংলাদেশ সময়
courtroom scence

নিউইয়র্কের ফেডারেল কোর্টে কাজী নাফিসের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে ফেডারেল রিজার্ভ ভবনে বোমা-হামলা করার পরিকল্পনার অভিযোগে আটক বাংলাদেশী তরুণ কাজী মোহাম্মদ রেজওয়ানুল আহসান নাফিসের আনুষ্ঠানিক বিচার প্রক্রিয়া শুরু হবার পর শুক্রবার প্রথম মিঃ নাফিস ঢাকায় তার বাবা-মার সাথে কথা বলেছে।

তার বিরুদ্ধে নিউইয়র্কের ফেডারেল কোর্টে অভিযোগ গঠন করার মধ্য দিয়ে তার বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক বিচার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

এদিকে তার পরিবারের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ সরকারের কাছে কনসুলার একসেস নিয়ে আইনি লড়াই শুরুর দাবি করা হয়েছে।

শুক্রবার সকাল ৮ টায় যাত্রাবাড়ির বাসায় কাজী আহসানউল্লাহর মোবাইল ফোনটি যখন বেজে উঠলো, তখন বাড়ির কারোরই ধারণা ছিল না ফোনটি নিউ ইয়র্ক থেকে কাজী মোহাম্মদ রেজওয়ানুল আহসান নাফিসের। ফোন পাওয়ার পর বাড়িতে বাবা আর মায়ের সাথে কথা হয় নাফিসের মাত্র দু-তিন মিনিট।

"দু-তিন মিনিট কথা বলার পরই লাইন কেটে গেল। "

কাজী আহসানউল্লাহ, কাজী নাফিসের বাবা

''আমার ছেলে আজ সকালে আটটার দিকে ফোন করে। আমার কুশল জিজ্ঞাসা করলো, ও বলল ও ভাল আছে। ওর মায়ের সাথে কথা বলল। আমি জানতে চাইলাম এরপর যোগাযোগ করতে পারবে কিনা। ও বলল ওর কাছে টাকা নেই। টাকা পাঠাতে হবে। দু-তিন মিনিট কথা বলার পরই লাইন কেটে গেল। ওর ল'ইয়ারও জানতো না যে ওকে জুরি বোর্ডে নেয়া হবে,'' বলেন কাজী আহসানউল্লাহ।

মূলত অর্থ সংকটের কথা বলা ছাড়া মামলা সংক্রান্ত বিষয়ে আলাপের আগেই টেলিফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় বলে জানান মিঃ আহসানউল্লাহ।

এবছরের জানুয়ারি মাসে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়া একুশ বছর বয়সী কাজি নাফিসকে নিউইয়র্কে ফেডারেল রিজার্ভ ভবনে বোমা-হামলা করার পরিকল্পনার অভিযোগে গত ১৮ই অক্টোবর স্টিং অপারেশনের মাধ্যমে গ্রেপ্তার করে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই।

পরে মামলা পরিচালনার যৌক্তিকতা আছে কিনা সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্রের গ্র্যান্ড জুরির সদস্যদের অনুমোদনের জন্য পাঠালে গ্রান্ড জুরি এই মামলায় সম্মতি দেয়।

তার বিরুদ্ধে মূলত দুটো অভিযোগ আনা হয়েছে - ব্যাপক বিধ্বংসী আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করে হামলা চালানোর চেষ্টা এবং আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী সংগঠন আল কায়েদার সাথে সংশ্লিষ্টতার মাধ্যমে আমেরিকার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র পরিকল্পনা করা।

ফেডারেল কোর্টের মুখপাত্র রবার্ট নারডোজা জানান, এই অভিযোগপত্র দাখিলের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে নাফিসের বিরুদ্ধে মামলা শুরু হলো।

কাজী নাফিসের পরিবার

কাজী নাফিসকে নিউইয়র্কে গ্রেপ্তারের পর কান্নায় ভেঙে পড়েন তার বাবা মা (ফাইল চিত্র)

তবে মিঃ নাফিসের বক্তব্য জানতে কবে তাকে আদালতে হাজির করা হবে সে বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত জানা যায়নি।

তবে মিঃ আহসানউল্লাহ বলছেন যেহেতু বিষয়টি এখন আইনি ভাবেই লড়তে হবে তারা এখন আইনি লড়াইয়ের কোন বিকল্প দেখছেননা।

'' রবিবার আমরা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যাবো এবং জানাবো। যেহেতু সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল যে বাংলাদেশের নাগরিক হলে যে কোন রকম সহযোগিতা করা হবে, এটাই সময় তাকে সহযোগিতা করার। এখন তো আইনি লড়াইয়ের বিকল্প নেই।''

তবে যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশ দূতাবাস এর আগে জানিয়েছিল, পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে কাজী নাফিসের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও আজ পর্যন্ত তারা কোনও ধরনের অনুমতি পাননি।

ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বহিঃপ্রচার অনুবিভাগের প্রধান মাসুদ মাহমুদ খন্দকার বিবিসি বাংলাকে জানান তারা এ বিষয়ে সবশেষ পরিস্থিতির দিকে লক্ষ্য রাখছেন এবং কাজী নাফিসের সাথে দেখা করার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

একই ধরনের খবর

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻