BBC navigation

সরকারি টেলিকম প্রতিষ্ঠানে দুর্নীতির অভিযোগ

সর্বশেষ আপডেট সোমবার, 5 নভেম্বর, 2012 15:47 GMT 21:47 বাংলাদেশ সময়
বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেড

বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেড

বাংলাদেশের দুর্নীতি দমন কমিশন রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন টেলিফোন কোম্পানি বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল)-এর সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ ১৪ ব্যক্তির বিরুদ্ধে ২০৫ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মামলা দায়ের করেছে।

দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষ থেকে রমনা থানায় সোমবার মোট পাঁচটি মামলা দায়ের করা হয় এবং এসব মামলায় ব্যক্তি মালিকানধীন পাঁচটি প্রতিষ্ঠানকে অবৈধভাবে ভিওআইপি সুবিধা দিয়ে ২০০ কোটির টাকার ওপরে রাজস্ব আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়।

মামলায় বিটিসিএলের সাবেক এবং বর্তমান শীর্ষ পর্যায়ের ছয় কর্মকর্তাকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া মামলার অন্য আসামিরা হচ্ছেন ওই প্রতিষ্ঠানগুলোর আটজন কর্মকর্তা।

দুদকের কর্মকর্তারা বলছেন, বিটিসিএলের কর্মকর্তারা যোগসাজশে এই প্রতিষ্ঠানগুলো অবৈধভাবে সংযোগ নিয়ে বৈদেশিক কল আদান-প্রদান করতো এবং পরে বৈদেশিক ৬০% কল অবৈধভাবে মুছে দেয়া হতো। ফলে সরকার কোটি কোটি টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হতো।

বাংলাদেশে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধেই অবৈধভাবে ভিওআইপি ব্যবসার মাধ্যমে রাজস্ব ফাঁকি দেয়ার ঘটনার খবর শোনা গেলেও, এবারই প্রথম টেলিযোগাযোগ খাতের সরকারি প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ কর্মকর্তাদের মামলায় আসামি করা হলো।

দুর্নীতি দমন কমিশনের দায়ের করা পাঁচটি মামলায় বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানি লিমিটেড, বিটিসিএল-এর সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবু সাঈদ খানসহ মোট ১৪ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

এদের মধ্যে সিঙ্গাপুর, আমেরিকা ও বৃটেনের পাঁচটি ব্যক্তিগত মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা রয়েছে যাদেরকে ভূয়া প্রতিষ্ঠান হিসেবে চিহ্নিত করেছেন দুদকের কর্মকর্তারা।

এই পাঁচটি প্রতিষ্ঠানকে বিটিসিএল কর্মকর্তারা অবৈধভাবে ভিওআইপি সুবিধা পাইয়ে দিয়েছেন বলে জানান দুদকের উপ-পরিচালক এস এম শাহিদুর রহমান।

কর্মকর্তারা বলছেন, মূলত পত্র-পত্রিকার খবর এবং বেনামে পাঠানো চিঠির মাধ্যমে পাওয়া বক্তব্যের ভিত্তিতে গত মে মাস থেকে এই অনুসন্ধান চালায় দুদক কর্মকর্তারা।

প্রাথমিকভাবে তারা অভিযোগের সত্যতা পেয়েই মামলা দায়ের করেছেন বলে জানান মি. রহমান। এ বিষয়ে অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের সাথে কথা হয়েছে বলেও দাবি করেন দুদকের এই কর্মকর্তা।

তবে এই অভিযোগগুলোর বিষয়ে বহু চেষ্টা করেও বিটিসিএলের কর্মকর্তাদের বক্তব্য জানা যায়নি।

এ বছরেরই অগাস্টে শীর্ষ ছয়টি মোবাইল ফোন কোম্পানিকেও অবৈধ ভিওআইপি ব্যবহার করে সিম বিক্রীর অভিযোগে জরিমানা করেছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রন কতৃর্পক্ষ বিটিআরসি।

সর্বশেষ গত মাসেও একটি ব্যক্তি মালিকানধীন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

কিন্তু কতটুকু নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসা?

মোবাইল ফোন কোম্পানিগুলোর সমিতি অ্যামটবের সাবেক মহাসচিব আবু সাইদ খান বিবিসিকে জানান, ২০০৮ সালে টেলিযোগাযোগ বিষয়ক আইএনডিটিএস নীতিমালার কারণেই এই দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না কারণ এর মাধ্যমেই বাংলাদেশের আন্তজাতিক টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে।

তার মতে এখানে মধ্যসত্বভোগীদের সুযোগ নেয়ার অবকাশ রয়েছে । তিনি যত দ্রুত সম্ভব এই নীতি বাতিলের দাবি জানান।

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻