BBC navigation

পুলিশের ফাঁদে হাইটেক্‌ পরীক্ষা জালিয়াত চক্র

সর্বশেষ আপডেট সোমবার, 22 অক্টোবর, 2012 16:11 GMT 22:11 বাংলাদেশ সময়
এ ধরনের রিস্টওয়াচ মোবাইল ফোন ব্যবহৃত হয় পরীক্ষায় নকলের কাজে।

এ ধরনের রিস্টওয়াচ মোবাইল ফোন ব্যবহৃত হয় পরীক্ষায় নকলের কাজে।

বাংলাদেশের বিভিন্ন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি এবং বিভিন্ন নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস এবং উত্তর সরবরাহের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে গোয়েন্দা পুলিশ ১০ জনকে আটক করেছে।

কর্মকর্তারা বলছেন, আটক ব্যক্তিরা মোবাইল ফোন প্রযুক্তি ব্যবহার করে অভিনব কায়দায় পরীক্ষা চলাকালে বিভিন্ন কেন্দ্রে পরীক্ষার্থীদের কাছে অর্থের বিনিময়ে উত্তর সরবরাহ করতেন।

এদের কাছ থেকে ঘড়ির মতো দেখতে এরকম শতাধিক মোবাইল ফোন পাওয়া গেছে।

গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, বেশ কিছুদিন নজরদারির পর গত দু’দিনে, শাহবাগ, খিলগাঁও এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা থেকে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার মশিউর রহমান জানান, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়, ব্যাংক এবং অন্যান্য নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের পাশাপশি তারা উত্তরও সরবরাহ করে থাকে মোটা টাকার বিনিময়ে।

তিনি বলেন, আটকদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ দুর্নীতি দমন কমিশনের একজন কর্মকর্তাও রয়েছেন।

এদিকে আটকদের বিরুদ্ধে একজন পরীক্ষার্থীদেরকে উত্তর সরবরাহের পর টাকা না পেয়ে অপহরণ করার অভিযোগও রয়েছে বলে জানায় গোয়েন্দা পুলিশ।

তাদের বিরুদ্ধে অপহরণ ও পাবলিক একজামিনেশন্স অ্যাক্ট আইনে মোট দুটো মামলা করা হয়েছে।

পুলিশ বলছে, একটি শক্তিশালী চক্রের মাধ্যমে কাজগুলো করা হয় এবং এই চক্রের সঙ্গে নামকরা বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষিকা এবং কর্মকর্তারা জড়িত।

এরই পরীক্ষার হলে প্রশ্নপত্র চলে যাওয়ার সাথে সাথে প্রশ্নপত্র বের করে নিয়ে গিয়ে অন্য সদস্যদের সরবরাহ করে।

এর পর বিষয়ভিত্তিক বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর লিখে মোবাইল ফোনে এসএমএস-এর মাধ্যমে তা পরীক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছানো হয় বলে গোয়েন্দা কর্মকর্তারা বলছেন।

পুলিশ বলছে, এ ধরনের সচল ও অকেজো মিলিয়ে ১০০টিরও বেশি ঘড়ি তারা জব্দ করেছে।

এদিকে এই ধরনের কর্মকান্ডের আড়ালে আরো ক্ষমতাশালী লোকজন যারা জড়িত আছেন তাদের খুঁজে বের করতে কতটা সক্রিয় গোয়েন্দারা এমন প্রশ্নে মি. রহমান দাবি করেন, তারা সেই চেষ্টাও করছেন এবং আটক ১০ জনকে রিমান্ডে নিয়ে এর সাথে আর কারা জড়িত আছেন সে বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻