BBC navigation

'ভুল' তথ্যের বিরুদ্ধে আদালতে এভারেস্ট বিজয়ী

সর্বশেষ আপডেট সোমবার, 15 অক্টোবর, 2012 15:18 GMT 21:18 বাংলাদেশ সময়
হিমলায়ের বেসক্যাম্পে মুসা ইব্রাহীম

হিমলায়ের বেসক্যাম্পে মুসা ইব্রাহীম

বাংলাদেশের প্রথম এভারেস্ট বিজয়ী পর্বতারোহী মুসা ইব্রাহীম এক প্রকাশনার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে সোমবার আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন।

চন্দ্রাবতী একাডেমি প্রকাশিত এক সংকলনে সম্প্রতি ‘বাংলাদেশের মানুষ আজ হিমালয়ে উঠে দাঁড়িয়েছে’ শিরোনামের একটি প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়।

ইনাম আল হকের লেখা ঐ প্রবন্ধে বলা হয়, বাংলাদেশের পক্ষে প্রথম এভারেস্ট শৃঙ্গ জয় করেন এম এ মুহিত।

মামলার বাদী মুসা ইব্রাহীমের যুক্তি, এম এ মুহিত দ্বিতীয় বাংলাদেশী যিনি এভারেস্ট শৃঙ্গ জয় করেছেন, প্রথম নন।

বাংলাদেশের পক্ষে এ পর্যন্ত চারজন তরুণ-তরুণী হিমালয়ের সবোর্চ্চ চূড়ায় উঠলেও সর্বপ্রথম এভারেস্ট জয়ের খবর আসে ২০১০ সালের ২৩ মে মুসা ইব্রাহীমের এই শৃঙ্গ জয়ের মধ্য দিয়ে।

তিনি নর্থ আলপাইন মাউন্টেনিয়ারিং ক্লাব নামে পর্বতারোহীদের একটি সংগঠনের সদস্য।

কিন্তু তিনি অভিযোগ করছেন গত মাসে প্রকাশিত শিশুদের জন্য একটি প্রবন্ধ গ্রন্থের সংকলনে তার পরিবর্তে আরেকজন পর্বতারোহী বাংলাদেশেী এম এ মুহিতকে প্রথম এভারেস্ট বিজয়ী হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে ইতিহাস বিকৃতির আশঙ্কা করছেন তিনি।

১২৫ জন লেখকের প্রবন্ধ নিয়ে প্রকাশিত সকালবেলার পাখি নামের এই গ্রন্থটিতে ভারত ও বাংলাদেশের লেখকদের লেখা সংকলিত হয়েছে যাদের মধ্যে রয়েছেন অধ্যাপক আনিসুজ্জাআমান, হায়াত মামুদ, সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়সহ অনেকেই।

এই গ্রন্থে ‘বাংলাদেশের মানুষ আজ হিমলায়ে উঠে দাড়িয়েছে’ নামে এই প্রবন্ধটি লেখেন পর্বতারোহীদের আরেকটি সংগঠন বাংলা মাউন্টেনিয়ারিং ক্লাবের সভাপতি ইনাম আল হক।

মুসা ইব্রাহীম বলছেন, এমন একটি বইয়ে এ ধরনের তথ্য বিভ্রাট প্রত্যাশিত নয়। তিনি আদালতের মাধ্যমে বইটি বাজেয়াপ্ত করার এবং সংশোধনের আগ পর্যন্ত প্রকাশনা বন্ধের অন্তর্বর্তীকালীন আদেশ চেয়েছেন।

বহুবার চেষ্টা করেও প্রবন্ধকার ইনাম আল হকের সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। তবে গ্রন্থটির একজেন সম্পাদক রহিম শাহ বলছেন, পুরা বিষয়টি সচেতনভাবেই ছাপানো হয়েছে এবং তিনি প্রথম এভারেস্ট জয়ী হিসেবে মুসা ইব্রাহীমের অবস্থান নিয়েও প্রশ্ন তোলেন।

তিনি বলেন এ সংক্রান্ত তথ্য-প্রমাণ তাদের কাছে রয়েছে এবং শিগগিরই তা জনসমক্ষে তুলে ধরা হবে। একই সঙ্গে আইনি লড়াইও চালিয়ে যাওয়ার কথা বলেন মি. শাহ।

তবে পেশায় সাংবাদিক মুসা ইব্রাহীম এসব অভিযোগকে ভিত্তীহীন এবং দু:খজনক বলে মন্তব্য করেন এবং এতে তার নিজের ও দেশের সম্মানহানির আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻