BBC navigation

উপকূলীয় এলাকায় বহু মানুষ এখনও নিখোঁজ

সর্বশেষ আপডেট শুক্রবার, 12 অক্টোবর, 2012 17:36 GMT 23:36 বাংলাদেশ সময়
bhola storm victims

ভোলার মনপুরায় ঝড়ে বিপর্যস্ত পরিবার

বাংলাদেশের উপকূলীয় জেলাগুলোয় বৃহস্পতিবার ভোররাতে ঝড়ের আঘাতের পর এলাকায় এখনও অনেক মানুষ নিখোঁজ রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা, যদিও সেখানকার প্রশাসন বলছে, গভীর সমুদ্রে থাকার কারণে মাছ ধরার ট্রলারগুলো ফিরে আসতে সময় লাগছে।

কিন্তু স্থানীয়দের মধ্যে তাতে আশংকা কাটেনি। স্থানীয়রা সরকারি তৎপরতার অভাব রয়েছে বলে অভিযোগ করলেও কর্তৃপক্ষ বলছে, সেখানে এর মধ্যেই ত্রাণ তৎপরতা শুরু করা হয়েছে, যদিও দুর্গম যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে সাহায্য পৌঁছতে কিছুটা সময় লাগছে।

উপকূলীয় জেলাগুলোয় বাসিন্দাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ঝড়ের পর থেকে চট্টগ্রাম, ভোলা আর নোয়াখালী মিলে তিনশ'র বেশি জেলে নৌকা এখনো নিখোঁজ রয়েছে।

সেই হিসাবে এখনও কোনরকম খোঁজ পাওয়া যায়নি, এরকম জীবিত বা মৃত মানুষের সংখ্যা কয়েক হাজার।

"ঝড়ে তাদের নৌকা উল্টে গেলে অন্য কর্মীরা সাঁতরে উপকূলে ফিরে আসতে পেরেছে, কিন্তু আমার স্বামীর এখনও কোন খোঁজ নেই।"

সখিনা খাতুন, মনপুরার অধিবাসী

ভোলায় মনপুরার সখিনা খাতুন বিবিসিকে টেলিফোনে বলেন, তার স্বামী, একটি জেলে নৌকার কর্মী, মোতাহার হোসেন ঝড়ের পর থেকেই নিখোঁজ রয়েছেন।

''হঠাৎ আসা ঝড়ে তাদের নৌকা উল্টে গেলে অন্য কর্মীরা সাঁতরে উপকূলে ফিরে আসতে পেরেছে, কিন্তু আমার স্বামীর এখনও কোন খোঁজ নেই।'' বলছেন মিসেস খাতুন।

মনপুরার একজন মাছ ব্যবসায়ী ফারুক উদ্দিন জানান, বুধবার ছিল সেখানে সাপ্তাহিক হাটের দিন। সে কারণে সেখানে আশেপাশের এলাকাগুলো থেকে নৌকা নিয়ে অনেক মানুষ এসেছিলেন। তাদের অনেকের এখনও কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।

সরকারি হিসাবে, ঝড়ের পর এই তিনটি জেলায় মৃতের সংখ্যা আরো চারজন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৭।

কিন্তু স্থানীয়রা বলছেন, প্রকৃতপক্ষে এই সংখ্যা আরো বেশি। কারণ দুর্গম এলাকায় যোগাযোগের সমস্যার কারণে অনেক জায়গায় স্থানীয়ভাবে মৃতদেহ দাফন করা হয়েছে।

তারা অভিযোগ করছেন, নিখোঁজদের সন্ধানে সরকারিভাবে কোন উদ্ধার তৎপরতা শুরু করা হয়নি।

তবে এই অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে সরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, নিখোঁজ বলে যেসব জেলে নৌকার কথা বলা হচ্ছে, এসব নৌকা খুব তাড়াতাড়ি ফিরে আসবে বলেই তারা আশা করছেন। কারণ গভীর সমুদ্রে মাছ ধরার কারণে এসব নৌকার ফিরে আসতে সময় লাগছে।

"মানুষ নিখোঁজ রয়েছেন বলা হলেও, আমাদের কাছে বা পুলিশের কাছে কেউ অভিযোগ করেনি যে তাদের কোন আত্মীয়কে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।"

সিরাজুল ইসলাম, নোয়াখালী জেলা প্রশাসক

এই ঝড়ে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির শিকার নোয়াখালীর জেলা প্রশাসক সিরাজুল ইসলাম বিবিসি বাংলাকে বলেন, নৌকা বা মানুষ নিখোঁজ রয়েছে, এরকম অভিযোগ এখনও তাদের কাছে নেই।

''মানুষ নিখোঁজ রয়েছেন বলা হলেও, আমাদের কাছে বা পুলিশের কাছে কেউ অভিযোগ করেনি যে তাদের কোন আত্মীয়কে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।''

সরকারিভাবে ত্রাণ কার্যক্রম বা নিখোঁজদের উদ্ধারে তৎপরতার অভিযোগ প্রসঙ্গে মি. ইসলাম বলছেন, গাছপালা পড়ে রাস্তাঘাট বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে, এমনকী যাদের ত্রাণ দেওয়া হবে, তারাও নিজেদের ভেঙ্গে যাওয়া ঘরবাড়ি নিয়ে ব্যস্ত থাকার কারণে প্রথমদিন ত্রাণ বিতরণে সেভাবে ব্যবস্থা নেওয়া যায়নি।

তবে শুক্রবার থেকে সরকারি তরফে সেখানে ত্রাণ কার্যক্রম পুরোমাত্রায় শুরু করা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, সেখানে এখন ক্ষতিগ্রস্থদের মধ্যে চাল, টিন আর নগদ টাকা বিতরণ শুরু হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রত্যন্ত এসব জেলায় নৌপথে চলাচল করা গেলেও, রাস্তায় রাস্তায় বড় আকারের গাছ পড়ে থাকার কারণে এখনও সড়কপথের যোগাযোগ ব্যবস্থা পুরোপুরি চালু করা সম্ভব হয়নি।

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻