BBC navigation

ছয় আম্পায়ারের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত শুরু

সর্বশেষ আপডেট মঙ্গলবার, 9 অক্টোবর, 2012 10:56 GMT 16:56 বাংলাদেশ সময়

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল ছয় আম্পায়ারের বিরুদ্ধে খেলা পাতানোর প্রস্তাবে রাজী হওয়ার অভিযোগ জরুরী ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে।

এই ছয় আম্পায়ার ওয়ার্ল্ড টুয়েন্টি টুয়েন্টি টুর্ণামেন্টের সময় খেলা পাতানোর প্রস্তাবে রাজী হন বলে ভারতের একটি টেলিভিশন চ্যানেল ‘ইন্ডিয়া টিভি’ অভিযোগ করে।

বাংলাদেশ, পাকিস্তান এবং শ্রীলংকার এই আম্পায়ারদের কাছে ছদ্ম পরিচয়ে ‘ইন্ডিয়া টিভি’র সাংবাদিকরা ঘুষের প্রস্তাব নিয়ে যান। ইন্ডিয়া টিভির এই রিপোর্ট প্রচারিত হওয়ার পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল বা আইসিসি আজ এই তদন্তের ঘোষণা দেয়।

আইসিসি এক বিবৃতিতে বলেছে, তারা ‘ইন্ডিয়া টিভি’র এসব অভিযোগের ব্যাপারে সজাগ আছেন এবং অভিযোগের তদন্তে সহায়তার লক্ষ্যে সব তথ্য দেয়ার জন্য ইন্ডিয়া টিভিকে অনুরোধ জানিয়েছেন।

তবে এক বিবৃতিতে আইসিসি বলছে, যে টুর্নামেন্টকে ঘিরে এই অভিযোগ, সেই টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে আলোচিত ওই ছয়জন আম্পায়ারের মধ্যে একজনও দায়িত্ব পালন করেননি।

ইন্ডিয়া টিভি তাদের রিপোর্টে জানিয়েছিল, সপ্তম এক আম্পায়ারকেও তারা খেলা পাতানোর জন্য ঘুষের প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু সেই আম্পায়ার এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, তারা শ্রীলংকায় সম্প্রতি হয়ে যাওয়া টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে ম্যাচ গড়াপেটার প্রস্তাব নিয়ে ‘ছদ্ম পরিচয়ে’ বাংলাদেশী আম্পায়ার নাদির শাহর সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা করে এবং এক পর্যায়ে মিস্টার শাহ ভারতের দিল্লীতে একটি হোটেলে তাদের প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠক করেন।

বৈঠকটি গোপন ক্যামেরায় ধারণ করে ইন্ডিয়া টিভি। টিভি চ্যানেলটি তাদের প্রতিবেদনে অভিযোগ করে নাদির শাহ ম্যাচ গড়াপেটার ওই প্রস্তাবে রাজি হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন।

তবে বাংলাদেশি আম্পায়ার নাদির শাহ এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

ভারতে অবস্থানরত নাদির শাহ টেলিফোনে বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন, তার কাছে এরকম ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব নিয়ে ইন্ডিয়া টিভির লোকজন এসেছিলেন এটা সত্যি, কিন্তু তিনি তাদের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন।

“এসব একেবারে ভিত্তিহীন অভিযোগ। আমি একেবারেই কানে তুলছি না এসব। তারা (ভারতীয় টেলিভিশন) বলেছে তাদের কথা, আমার কথা তো কেউ শুনছে না।”

এই বিষয়টি কেন তিনি আইসিসিকে জানাননি সে প্রশ্নের উত্তরে নাদির শাহ বলেন, “আমি কাউকে জানাইনি, কারণ আমি ভাবিনি এটা এতদূর গড়াবে। আমার এজেন্ট বিষয়টি জানতো। ও আমাকে এ ব্যাপারে কোনো আলাপ না করে চুপচাপ থাকতে বলেছিলো।”

এদিকে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডও এক বিবৃতিতে এই অভিযোগ তদন্ত করে দেখবে বলে জানিয়েছে।

বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস এক বিবৃতিতে জানান, যে বাংলাদেশি আম্পায়ারের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ আনা হয়েছে, তিনি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডেরও একজন আম্পায়ার। এই অভিযোগ বিসিবি খুবই গুরুত্বের সঙ্গে নিচ্ছে।

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻