BBC navigation

বিশ্ব ব্যাংক সংস্কারের আহ্বান শেখ হাসিনার

সর্বশেষ আপডেট শুক্রবার, 28 সেপ্টেম্বর, 2012 17:31 GMT 23:31 বাংলাদেশ সময়
sheikh hasina speaks at unga

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে শেখ হাসিনা

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে দেওয়া ভাষণে বিশ্ব ব্যাংক, আইএমএফ ও অন্যান্য দাতা সংস্থাগুলোর সংস্কারের আহ্বান জানিয়েছেন।

নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৬৭তম অধিবেশনে দেওয়া এই ভাষণে তিনি জাতিসংঘের সংস্কারের প্রয়োজনীয়তার কথাও বলেছেন।

"এসব প্রতিষ্ঠানের যে কাঠামো, এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়া, তা আসলে ৬০ বছর আগের ক্ষমতার সমীকরণকে প্রতিফলিত করছে। এতে অল্প সংখ্যাক সুবিধাভোগীর স্বার্থ সিদ্ধি হচ্ছে।"

শেখ হাসিনা, বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের বর্তমান কাঠামোতে কেবল গুটিকয় সুবিধাভোগীর স্বার্থ রক্ষিত হচ্ছে বলে অভিযোগ করে শেখ হাসিনা বলেন, নতুন সহস্রাব্দের যে নতুন বিশ্ব ব্যবস্থা, এসব প্রতিষ্ঠানে তার প্রতিফলন থাকা দরকার।

শেখ হাসিনা তাঁর ভাষণের সমাপনী অংশে বলেছেন, জাতিসংঘের বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের সঙ্গে তিনিও একমত যে, জাতিসংঘ, ব্রেটন উড ইনস্টিটিউশনগুলো এবং আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সংস্কার দরকার।

"এসব প্রতিষ্ঠানের যে কাঠামো, এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়া, তা আসলে ৬০ বছর আগের ক্ষমতার সমীকরণকে প্রতিফলিত করছে। এতে অল্প সংখ্যাক সুবিধাভোগীর স্বার্থ সিদ্ধি হচ্ছে। সংখ্যাগরিষ্ঠের মত এখানে উপেক্ষিত হচ্ছে।'' বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

"এটা মনে হতে পারে, বিশ্ব ব্যাংকের বিভিন্ন ধরণের বক্তব্য বা শর্ত থেকে সরকারের অস্বস্তির বিষয় তুলে ধরা হয়েছে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে।"

ড: দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, অর্থনীতিবিদ, সিপিডি

বিশ্ব অর্থনৈতিক সংকটের কারণে আন্তর্জাতিক মহলে বিশ্ব ব্যাংক এবং আইএমএফসহ আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে সংস্কারের প্রশ্ন আবারও উঠে এসেছে বলে উল্লেখ করেছেন বাংলাদেশের অর্থনীতিবিদদের অনেকেই।

কিন্তু তারা মনে করেন, পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়ন প্রশ্নে একটা পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে যখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব ব্যাংকসহ আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে সংস্কারের কথা তুলে ধরছেন, তখন এধরনের বক্তব্যের ভিন্ন ব্যাখ্যা করার সুযোগ থাকে।

বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সিপিডি’র দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য মনে করেন, প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যের ক্ষেত্রে পদ্মাসেতুর অর্থায়ন নিয়ে সরকারের অস্বস্তির বিষয় ফুটে উঠেছে- এমনটাই মনে হতে পারে।

মি: ভট্টাচার্য বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী যে বক্তব্য দিয়েছেন, সেটি আন্তর্জাতিক প্রেক্ষিতে একটি চলমান আলোচনা। তবে এই বক্তব্যে একটি দেশীয় প্রেক্ষিত রয়েছে। পদ্মা সেতু নিয়ে এই মুহুর্তে বিশ্ব ব্যাংকের সাথে বাংলাদেশ সরকার বিরূপ সম্পর্কের মধ্যে রয়েছে। সে কারণে এটা মনে হতে পারে, বিশ্ব ব্যাংকের বিভিন্ন ধরণের বক্তব্য বা শর্ত থেকে সরকারের অস্বস্তির বিষয় তুলে ধরা হয়েছে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে।’

তবে আরেকজন অর্থনীতিবিদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক আবুল বারাকাত ভিন্নমত পোষণ করেছেন।

"পদ্মাসেতুর অর্থায়ন নিয়ে যে পরিস্থিতি হয়েছে, সেটাই বলে দেয় বিশ্ব ব্যাংক এবং আইএমএফের কাঠামো ভিন্ন হলে হয়তো এমন সমস্যা হতো না।"

আবুল বারাকাত, অর্থনীতিবিদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

তিনি বলেছেন, বিশ্ব ব্যাংক এবং আইএমএফ নিজেরাই সংস্কারের কথা বলে আসছে। ফলে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে দেশের প্রেক্ষাপট বা সরকারের রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গির প্রতিফলন হয়েছে, এভাবে দেখার সুযোগ নেই বলে তিনি মন্তব্য করেছেন।

‘পদ্মাসেতুর অর্থায়ন নিয়ে যে পরিস্থিতি হয়েছে, সেটাই বলে দেয় বিশ্ব ব্যাংক এবং আইএমএফের কাঠামো ভিন্ন হলে হয়তো এমন সমস্যা হতো না।’

কিছুদিন ধরেই প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে উঠে আসছে বিশ্ব ব্যাংকের সমালোচনা।

সর্বশেষ জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে ভাষণে তিনি বিশ্ব ব্যাংকসহ আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সংস্কারের কথা তুলে ধরেন।

এদিকে পদ্মা সেতুর অর্থায়ন প্রশ্নে সমঝোতার উদ্যোগে বিশ্ব ব্যাংকের একটি প্রতিনিধি দল ঢাকায় আসছে পহেলা অক্টোবর।

অর্থনীতিবিদ দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেছেন, একদিকে বিশ্ব ব্যাংকের সব শর্ত মেনে নেওয়া হচ্ছে, আরেকদিকে বিশ্ব ব্যাংকে সংস্কারের কথা বলা হচ্ছে। এ ধরণের অবস্থানকে দ্বিমুখী নীতির প্রতিফলন বলে মনে হতে পারে।

তিনি মনে করেন, প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্য এবং সমঝোতার চেষ্টা, এই দুটো বিষয়কে বিশ্ব ব্যাংক মিলিয়ে দেখবে না।

তবে সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন পর্যায় থেকে দেওয়া বক্তব্যের ব্যাপারে বিশ্ব ব্যাংক একটি বিবৃতি দিয়ে বলেছিল এর থেকে তাদের বক্তব্যে ভ্রান্ত ব্যাখ্যা করা হচ্ছে।

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻