মাঠে ময়দানে

১৯ অক্টোবর ২০১৩ শেষবার আপডেট করা হয়েছে ১৬:৫৮ বাংলাদেশ সময় ১০:৫৮ GMT

t20

২০১৪ সালের টি-২০ বিশ্বকাপের আর মাস পাঁচেক বাকি। আয়োজক দেশ বাংলাদেশ তার জন্য কতটা প্রস্তুত? এ নিয়ে কাটাছেঁড়া হবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসির এক বোর্ড মিটিং-এ যেটি শুরু হচ্ছে আজ (শনিবার) থেকে লন্ডনে।

গত সপ্তাহে প্রস্তুতি সরেজমিনে দেখতে আইসিসির একটি প্রতিনিধিদল বাংলাদেশে গিয়েছিল। লন্ডনের বৈঠকে তারা তাদের রিপোর্ট দেবে।

জানা গেছে বিশ্বকাপের অন্তত দুটো ভেন্যু নিয়ে আইসিসির উদ্বেগ ছিল। ফলে লন্ডনে বৈঠকে কি হয় তা নিয়ে তাদের কোন উৎকণ্ঠা রয়েছে কিনা – বিবিসি বাংলাকে বলেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজামুদ্দিন চৌধুরী

সঙ্কটে লর্ডস

lord's

কেউই বিতর্ক করবেন না যে ক্রিকেট আর লর্ডস সমার্থক। লন্ডনের এই স্টেডিয়ামটিকে বলা হয় হোম অব ক্রিকেট বা ক্রিকেটের তীর্থস্থান।

২২৬ বছরের পুরনো এই ক্রিকেট মাঠটিকে কিভাবে আরও আধুনিক করা যায়, আসন কিভাবে বাড়ানো যায় – তা নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই কথাবার্তা হচ্ছে। কিন্তু কিভাবে লর্ডসের সেই পরিবর্ধন পরিমার্জন আধুনিকায়ন হবে, তা নিয়ে বিস্তর মতবিরোধ শুরু হয়েছে এই মাঠের মালিকানা যে ক্লাবের হাতে - সেই এমসিসিতে।

ক্লাবের বেশ কিছু সদস্য বলছেন, স্টেডিয়ামটির চত্বরে যে খোলা জায়গা সেখানে আবাসিক ভবন নির্মাণ করে বিক্রি করলে বিপুল অর্থ আয় করা সম্ভব যেটা দিয়ে লর্ডসকে পাকাপাকিভাবে শক্ত অর্থনৈতিক ভিত্তি দেয়া যাবে।

কিন্তু অন্যপক্ষ, যাদের মধ্যে রয়েছে মাইক গ্যাটিংয়ের নেতৃত্বে বর্তমান নির্বাহী কমিটি, তাদের বক্তব্য গ্যালারির পাশে আবাসিক ভবন বানালে লর্ডস আর লর্ডস থাকবে না। স্টেডিয়ামটির যে নান্দনিক বিশেষত্ব, যে ঐতিহ্য তা নষ্ট হবে। বলা হচ্ছে এই ইস্যুতে এমসিসির সদস্যরা কার্যত দু ভাগ হয়ে গেছেন।

বৃহস্পতিবার এক জরুরী সভায় এ বিতর্কের পাকাপাকি কোন সুরাহা হয়নি।

লর্ডসকে নিয়ে এই কলহের বিশ্লেষণ করেছেন বিবিসির সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক মিহির বোস