বিজ্ঞানের আসর

১৫ অক্টোবর ২০১৩ শেষবার আপডেট করা হয়েছে ২১:০৭ বাংলাদেশ সময় ১৫:০৭ GMT

higgs boson
নোবেল বিজয়ী পিটার হিগসের তত্ত্বে বিশ্বব্রহ্মাণ্ড সৃষ্টির রহস্য উন্মোচন

এ বছর পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন ব্রিটেনের বিজ্ঞানী পিটার হিগস্‌ এবং বেলজিয়ামের ফ্রাঁসোয়া এংলার্ট তাঁদের হিগস্‌ বোসন তত্ত্বের জন্য। বলা হচ্ছে, এই তত্ত্বের ফলে বিশ্বব্রহ্মাণ্ড সৃষ্টির রহস্য এখন অনেক পরিষ্কার হবে।

সার্ন নামে যে বৈজ্ঞানিক গবেষণা প্রকল্প থেকে এই হিগস্‌ বোসন তত্ত্ব আবিষ্কৃত হয়েছে। সেই প্রকল্পের সাথে জড়িত আছেন ভারতের পদার্থবিদ ড সুনন্দ ব্যানার্জী। হিগস্‌ বোসন তত্ত্বটা ঠিক কি? কখন, কিভাবে তা মানুষের কাজে আসতে পারে ? বিবিসি বাংলাকে বলেছেন ড ব্যানার্জী।

পানির উৎস কি?

পৃথিবীর সারফেস অর্থাৎ উপরিতলের ৭০ শতাংশই পানি। পৃথিবীতে এই পানি এলো কোত্থেকে? বিজ্ঞানীরা এখন বলছেন, সেই রহস্যের উত্তর তারা হয়ত খুঁজে পেয়েছেন। দেড়শ আলোক বর্ষ দুরের একটি মৃতপ্রায় সূর্য পর্যবেক্ষণের সময় এই রহস্যের একটা ব্যাখ্যা পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। পানি ভর্তি একটি অ্যাস্টেরয়েড অর্থাৎ গ্রহাণুর সাথে পৃথিবীর সংঘর্ষ হলে, সেই পানির অনেকটাই পৃথিবীতে এসে পড়ে। আজকের এই মহাসমুদ্র, সমুদ্রের পানি সূত্র সেটাই। কিভাবে এই রহস্য তারা খুঁজে পেলেন-- বিবিসিকে বলেছেন ব্রিটেনের কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাস্ট্রোনমির অধ্যাপক ড জে ফাহিরী

হাতির বুদ্ধিমত্তা

হাতির বুদ্ধিমত্তা, মানুষের সাথে হাতির সম্পর্ক নিয়ে অনেক গান গল্প সিনেমা হয়েছে। হাতিকে নিয়ে সর্বশেষ গবেষণার পর ব্রিটেনের সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞানীরা বলছেন, মানুষের ইশারা বোঝার অবিশ্বাস্য ক্ষমতা রয়েছে বন্য এই প্রাণীর। আফ্রিকার জিম্বাবুয়েতে একদল হাতির ওপর পরিচালিত এই গবেষণার সময় বিজ্ঞানীরা দেখেছেন কোন প্রশিক্ষণ ছাড়াই, তারা মানুষের ইশারা বুঝতে পারছে। গবেষণা প্রকল্পের অধ্যাপক রিচার্ড বায়ার্ন এতটাই মুগ্ধ হয়েছেন যে তিনি বলছেন মানুষের ইশারা, মানুষের কথা বোঝার ক্ষমতা এমনকি শিম্পাঞ্জির চেয়েও হাতির অনেক বেশি।

বিজ্ঞানের আসর শুনুন শাকিল অনোয়ারের কাছে।