BBC Bangla

মূলপাতা > খবর

ডেনভারে বন্দুকধারীর আকস্মিক গুলিতে নিহত ১২

Facebook Twitter Google+
20 জুলাই 2012 18:32
denver shooting

আমেরিকায় ডেনভারের পুলিশ বলছে মুখোস পরা এক বন্দুকধারীর গুলিতে ১২ জন মারা গেছে, আহত হয়েছে অন্তত ৫০জন।

শহরতলির এক সিনেমাহলে একটি ব্যাটম্যান চলচ্চিত্র প্রদর্শনের সময় বন্দুকধারী হলে ঢুকে এলোপাথাড়ি গুলি চালায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন বন্দুকধারী মুখোস পরা এক ব্যক্তি মধ্যরাতে সিনেমা হলে ঢুকে গুলিবর্ষণ শুরু করে।

ডেনভারের অরোরা শহরতলির ওই হলে তখন 'দ্য ডার্ক নাইট রাইসেস' নামে ছবিটি দেখানো হচ্ছিল।

অরোরার পুলিশ বলছে কাছেই এক গাড়ি পার্ক করার জায়গা থেকে তারা ২৪ বছরের এক তরুণকে গ্রেপ্তার করেছে যার কাছে একটি রাইফেল ও হ্যান্ড-গান ছিল।

ওই তরুণ পুলিশকে বলেছে তার বাড়িতে বিস্ফোরক পদার্থ রয়েছে। অরোরার পুলিশ প্রধান ড্যানিয়েল ওটস্ বলছেন তার দেওয়া এই তথ্যের ভিত্তিতে উত্তর অরোর একটি অ্যাপার্টমেন্ট ব্লক থেকে বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

ঘটনার বিস্তারিত জানিয়ে অরোরা পুলিশ প্রধান সাংবাদিকদের বলেছেন আকস্মিক গুলিবর্ষণের এই ঘটনা ঘটে মধ্যরাতের একটু পরেই। তিনি বলেন সেঞ্চুরি সিক্সটিন্ সিনেমা কমপ্লেক্সের একটি হলের সামনে একজন বন্দুকধারীকে দেখা যায় রাত প্রায় সাড়ে বারোটা নাগাদ।

'' প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান ওই ব্যক্তি একটি ক্যানেস্তারা থেকে গ্যাস ছাড়তে শুরু করে। তারা গ্যাস বেরনর আওয়াজ শুনতে পান - এরপরই ওই ব্যক্তি গুলি চালাতে শুরু করে।''

তিনি বলেন এখনও পর্যন্ত একজন ব্যক্তিরই জড়িত থাকার তথ্য পাওয়া গেছে।

পুলিশ কর্মীরা দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে পেছনের কারপার্কে গাড়ির ভেতরে বন্দুকসহ এক ব্যক্তিকে আটক করে বলে মিঃ ওটস্‌ জানিয়েছেন।

বেশ কিছুক্ষণ ধরে ওই তরুণ গুলি চালিয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানাচ্ছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনায় ছবিটি শুরু হবার ৩০ থেকে ৪০ মিনিটের মাথায় তারা ওই তরুণকে হলের সামনের সারির কাছের এক প্রবেশপথ দিয়ে ঢুকতে দেখে।

হলে প্রচুর ধোঁয়া দেখে কেউ কেউ ভেবেছিলেন ছোঁড়া বোমা থেকে ধোঁয়া বেরচ্ছে অথবা টিয়ার শেল ছোঁড়া হয়েছে। অনেকে চেয়ারের নিচে আশ্রয় নেন।

ধোঁয়া ও শব্দ থেকে কেউ কেউ আবার এমনও ভেবেছিলেন ওটা সিনেমার দৃশ্যের জন্য তৈরি করা স্পেশাল এফেক্টস্।

নিহত চোদ্দজনের মধ্যে ১০ জন হলের ভেতরেই মারা গেছেন বলে শহরের পুলিশ প্রধান জানিয়েছেন।

গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই যারা পুলিশের সঙ্গে একযোগে কাজ করছে, তারা বলছে এখনও পর্যন্ত এই ঘটনার সঙ্গে সন্ত্রাসী কোনো যোগসূত্র পাওয়া যায় নি।

বুকমার্ক করুন

Email Facebook Google+ Twitter
রিফ্রেশ