BBC navigation

বাংলাদেশ সংলাপে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধের ইঙ্গিত মন্ত্রীর

সর্বশেষ আপডেট রবিবার, 17 ফেব্রুয়ারি, 2013 08:31 GMT 14:31 বাংলাদেশ সময়

পর্ব-১৪:

খাদ্যমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন ধর্মভিত্তিক রাজনীতি বা রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম এসব থেকে তারা জাতিকে মুক্ত করবেন। তবে শুধু জামায়াতকে নিষিদ্ধ করতে আইন করা যৌক্তিক হবে না বলে মনে করেন বিএনপি নেতা ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন।

দেখুন:

ক্লিক করুন ইউটিউব

sanglap-iii_ep14_panel

প্যানেল সদস্য (বাঁ থেকে) : বাংলাদেশের খাদ্যমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক, ময়মনসিংহ জেলা নাগরিক আন্দোলন ও উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদ সভাপতি আনিসুর রহমান খান, অনুষ্ঠান সঞ্চালক আকবর হোসেন, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. শাহরোজ মাহেন হক এবং সাবেক প্রতিমন্ত্রি এবং বিএনপি ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলার সভাপতি এ কে এম মোশাররফ হোসেন।

বাংলাদেশ সংলাপ: পর্ব-১৪

বাংলাদেশ সংলাপ: পর্ব-১৪

শুনুনmp3

আপনার ফ্ল্যাশ প্লেয়ারের ভার্সনটি সঠিক নয়

বিকল্প মিডিয়া প্লেয়ারে বাজান

বিবিসি’র বাংলাদেশ সংলাপে অংশ নিয়ে বাংলাদেশের খাদ্যমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন ধর্মভিত্তিক রাজনীতি বা সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম নির্দিষ্ট করে দেয়ার বিষয়টি তারা সমর্থন করেননা, কারণ এগুলো মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঙ্গে সাংঘর্ষিক। এতদিন কৌশলগত কারণেই এগুলো রাখা হয়েছিলো। এখন সরকার এ বিষয়ে দ্রুতই উদ্যোগ নিবে।

শনিবার ময়মনসিংহে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে সাবেক জ্বালানী প্রতিমন্ত্রী ও বিএনপি'র ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা শাখার সভাপতি এ কে এম মোশাররফ হোসেন বলেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জামায়াতের সাথে বিএনপির রাজনৈতিক আঁতাত থাকলে দু'দলের নীতি আলাদা।

প্যানেল আলোচকদের মধ্যে আরও ছিলেন ময়মনসিংহ জেলা নাগরিক আন্দোলন ও উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি আনিসুর রহমান খান এবং বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. শাহ্‌রোজ মাহেন হক।

সংলাপের এ পর্বে প্রথম প্রশ্ন করেন তাহমিনা আখতার রিভা। তিনি জানতে চান, ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দার হত্যা এবং শাহবাগ গণজাগরণের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে এ আশংকা কি করা যায় যে এদেশে গৃহযুদ্ধ শুরু হতে পারে ?

ড. আব্দুর রাজ্জাক

"রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী। এটি হবে সব ধর্মের সমান অধিকার। কিন্তু কৌশলগত কারণে আমাদের সময় লাগছে।"

ড. শাহ্‌রোজ মাহেন হক বলেন, ‘এ ধরনের সংঘাত আমরা আগেও দেখেছি। এটা যে গৃহযুদ্ধের মতো অবস্থায় নিয়ে যেতে পারে আমার মনে হয় সে পরিস্থিতি এখনো সৃষ্টি হয়নি। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী রয়েছে। তাঁরা নিশ্চয়ই সে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করবেন’।

আনিসুর রহমান খান বলেন, ‘জামায়াত গৃহযুদ্ধের হুমকি দিয়েছে। কিন্তু তাদের সাথে জনগণ নেই। তাঁরা কিছু খুন করতে পারে কিন্তু আলটিমেটলি তারা নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। কারণ তরুণরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত’।

একজন দর্শক বলেন, ‘গৃহযুদ্ধ বাঁধানোর মতো শক্তি জামায়াতের নেই। সাময়িক কিছু সমস্যা তাঁরা সৃষ্টি করতে পারে। এর বেশি কিছু করার সামর্থ্য তাদের নেই’।

মি. হোসেন বলেন, ‘রাজনীতি বা নির্বাচনের কারণে জামায়াতের সংগে আঁতাত হতে পারে কিন্তু দুই দলের আদর্শ আলাদা। জামায়াত এমন কিছু যদি করে যেটা বিএনপির আদর্শের সঙ্গে মিলবে না, সেক্ষেত্রে বিএনপি জামায়াতের সঙ্গে থাকবে না। তবে সংঘাতময় অবস্থা হবে বলে আমার মনে হয়না’।

এ কে এম মোশাররফ হোসেন

"শাহবাগ আন্দোলনে একটি দল রয়েছে। সব দল নেই। এখানে সরকারি দল আছে। এখানে নতুন কিছু শিক্ষণীয় নেই।"

মন্ত্রী বলেন, ‘শাহবাগ যে জাগরণ এনেছে, তাতে গৃহযুদ্ধের সম্ভাবনা নেই। ছোটখাটো দুর্ঘটনা হতে পারে। আন্দোলনকারীদের ত্যাগ স্বীকার করতে হতে পারে। তবে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও আইন রয়েছে, তাই তেমন পরিস্থিতি মোকাবেলা করা সমস্যা হবেনা।’

ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ

মোঃ সাইফুল হক জানতে চান যে শাহবাগের আন্দোলনকে একটি পরিণতির দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য জামায়াত-শিবির সহ ধর্মভিত্তিক দলগুলো নিষিদ্ধ করা যৌক্তিক কি-না?

মি. খান বলেন, ‘ধর্মাশ্রয়ী দল নিষিদ্ধ করা প্রয়োজন। দরকার হলে সংবিধান সংশোধন করে তাদের নিষিদ্ধ করা উচিত। আগে না করে সরকার ভুল করেছে।’

অধ্যাপক হক বলেন, ‘জনগণ চাইলে এবং সরকার মনে করলে জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধ করতে পারে। কিন্তু সংবিধানে তো তাদের রাজনীতির সুযোগ দেয়া হয়েছে। আগে জানতে হবে কত শতাংশ (মানুষ তাদের) নিষিদ্ধ করতে চাইছে। তরুণ প্রজন্মের দাবি যৌক্তিক কি না তা সরকারকেই বুঝাতে হবে।’

ড. শাহ্‌রোজ মাহেন হক

"শুধু ট্রাইব্যুনালে বিচারের বিরুদ্ধেই নয়। তরুণদের অবস্থান হবে দুর্নীতির বিরুদ্ধে। কর্মসংস্থানের জন্য। দেশকে এগিয়ে নেয়ার জন্য।"

একজন দর্শক বলেন, ‘আর কত জাগরণ ঘটলে বা আর কত রক্ত ঝরলে জামায়াতকে নিষিদ্ধ করা হবে’?

মি. হোসেন বলেন, ‘জামায়াত একটি নিবন্ধিত দল। অপরাধ করলে তো আইনের মাধ্যমে (তাদের) বিচার করা যাবে। জামায়াতকে নিষিদ্ধ করতে আইন হলে তা যৌক্তিক হবেনা। কারণ রাজনীতির অধিকার সবার আছে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী। এটি হবে সব ধর্মের সমান অধিকার। কিন্তু কৌশলগত কারণে আমাদের সময় লাগছে। আমরা কোন ক্রমেই ধর্মভিত্তিক রাজনীতি সমর্থন করিনা’।

জামায়াতকে নিষিদ্ধ করা উদ্যোগ নেবেন কি না এমন একটি প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটা কৌশল আর সময়ের ব্যাপার। আমরা ধর্মভিত্তিক রাজনীতি বা রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম এসবে বিশ্বাস করিনা। এগুলো সংবিধানে ঢুকানো হয়েছে। অবশ্যই আমরা এগুলো থেকে জাতিকে মুক্ত করবো’।

সংলাপে আগত একজন দর্শক

"শাহবাগ আন্দোলন প্রমাণ করেছে যে ন্যায্য দাবি আদায়ে রাজনৈতিক লেবাস লাগেনা।"

আন্দোলন থেকে শিক্ষা

দর্শক জান্নাতুন নাসরিনের প্রশ্ন ছিল, 'শাহবাগের আন্দোলনের একটি সুদূরপ্রসারী রাজনৈতিক তাৎপর্য রয়েছে বলে আমি মনে করি। এখান থেকে রাজনৈতিক দলগুলো কী শিক্ষা নিতে পারে'?

মি. হোসেন বলেন, ‘শাহবাগ আন্দোলনে একটি দল রয়েছে, সব দল নেই। এখানে সরকারি দল আছে। এখানে নতুন কিছু নেই যে পরিবর্তন হয়ে যাবে। নতুন কিছু শিক্ষণীয় নেই।’

মি. খান বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের যে চেতনা হারিয়ে ফেলেছিলাম শাহবাগের আন্দোলনে তার পুনর্জাগরন হয়েছে। এ আন্দোলন শিক্ষা দিয়েছে যে ধর্মভিত্তিক দলগুলোকে প্রশ্রয় দেয়া ঠিক হবেনা’।

একজন দর্শক বলেন, ‘রাজনীতিবিদরা যে অসুস্থ রাজনীতির চর্চা করছেন তা থেকে বেরিয়ে আসার শিক্ষা নিতে পারবে’। আরেকজন দর্শক বলেন, ‘এটি প্রমাণ করেছে ন্যায্য দাবি আদায়ে রাজনৈতিক লেবাস লাগেনা’।

মন্ত্রী বলেন, ‘প্রজন্ম চত্বর থেকে অনেক শেখার আছে। অনেক বিষয়ে আমার মনে দ্বিধাদ্বন্ধ ছিল। আমাদের কিছু কৌশলগত সমস্যা ছিল। শাহবাগ নতুন জাগরণ, নতুন অধ্যায়।’

আনিসুর রহমান খান

"জামায়াত গৃহযুদ্ধের হুমকি দিয়েছে। কিন্তু তাদের সংগে জনগণ নেই। তারা কিছু খুন করতে পারে। কিন্তু আলটিমেটলি তারা নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে।"

শাহ্‌রোজ মাহেন হক বলেন, ‘শুধু ট্রাইব্যুনালে বিচারের বিরুদ্ধেই নয়, তরুণদের অবস্থান হবে দেশকে এগিয়ে নেয়ার জন্য, দুর্নীতির বিরুদ্ধে, কর্মসংস্থানের জন্য। তাদের চলার জন্য জাগরণের সৃষ্টি করতে হবে।’

পিওর ফুড অথরিটি হচ্ছে

রেশমা বিনতে হাবিব জানতে চান যে বর্তমানে বাজারে ফর্মালিন-মুক্ত খাবার বিক্রির জন্যে যে অভিযান চলছে, তা আসলে কতটুকু সফল হচ্ছে ?

মন্ত্রী বলেন, ‘খাদ্যে ভেজাল নিয়ে জাতি আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। ভেজাল মুক্ত খাদ্য নিশ্চিত করতে সরকার সব আইন সমন্বয় করে পিওর ফুড অথরিটি নামে একটি প্রতিষ্ঠান গঠন করতে যাচ্ছে। সব ধরনের ভেজালের বিরুদ্ধে অনেক পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে’।

তবে শাহ্‌রোজ মাহেন হক বলেন, সার্বক্ষনিক মনিটরিং থাকতে হবে। না হলে শুধু আইন দিয়ে প্রতিরোধ করা যাবেনা। জনগণকে সচেতন করতে হবে।’

মি. হোসেন বলেন, ‘জনগণকে সচেতন হতে হবে এ বিষয়ে। সরকারের সহায়তা অবশ্যই দরকার আছে’।

একজন দর্শক বলেন, ‘খাদ্যে হোক আর ঔষধে হোক, ভেজাল-কারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি দেয়া হচ্ছেনা কেন ?’

বাংলাদেশ সংলাপে আগত দর্শকদের একাংশ।

বাংলাদেশ সংলাপের এ পর্বটি অনুষ্ঠিত হয় ময়মনসিংহ বিদ্যাময়ী সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে।


আপনাদের মন্তব্য:

বিবিসি বাংলাদেশ সংলাপে চলতি সপ্তাহে আলোচিত বিষয়বস্তু সম্পর্কে আপনার কী মতামত?:

মন্তব্য করুন

* এই ঘরগুলি অবশ্যই পূরণ করতে হবে

একই ধরনের খবর

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻