BBC navigation

পেট্রাপোলের চেকপোস্ট : অগ্রগতি সামান্যই

সর্বশেষ আপডেট শুক্রবার, 10 অগাষ্ট, 2012 11:05 GMT 17:05 বাংলাদেশ সময়
পেট্রাপোল বন্দরে যাত্রীদের ভিড়

পেট্রাপোল বন্দরে যাত্রীদের ভিড়

বছরখানেক আগে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি চিদাম্বরম পশ্চিমবঙ্গের পেট্রাপোল সীমান্তে একটি নতুন সমন্বিত চেকপোস্ট ভবনের শিলান্যাস করেছিলেন৻ সেখানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন এবং পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী৻

সে সময় ভারত সরকার বলেছিল বাংলাদেশের সঙ্গে সীমান্ত-বাণিজ্য বৃদ্ধি আর যাত্রীদের যাতায়াতে সুবিধার জন্যই পেট্রাপোলে এই অত্যাধুনিক স্থলবন্দর ভবনের পরিকল্পনা৻

কিন্তু একবছর পর পেট্রাপোল সীমান্তের সেই নতুন অত্যাধুনিক ভবনের নির্মাণকাজ বলতে যা হয়েছে, তা হলো শুধু মাটি ফেলে জমি উঁচু করা এবং কয়েকটা কংক্রিটের খুঁটি৻ কাজ যে কবে শেষ হবে, কেউ জানেন না৻

ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের স্থল বন্দর পেট্রাপোলে খুব সকাল থেকেই ব্যস্ততা চরমে৻ বাসের যাত্রীরা বড় ব্যাগ-সুটকেশ ভাঙ্গাচোরা রাস্তা দিয়ে টেনে নিয়ে যাচ্ছেন।

"কলকাতা থেকে সীমান্ত অবধি যাওয়ার রাস্তা চওড়া না করে অথবা নতুন রাস্তা তৈরি না করে এ ধরনের অত্যাধুনিক স্থলবন্দর তৈরি করা অর্থহীন৻"

পেট্রাপোলের একজন কর্মকর্তা

এক বাড়িতে পাসপোর্টি-ভিসা পরীক্ষা। অন্য বাড়িতে কাস্টমস বিভাগ৻ মালবোঝাই ট্রাকের সারির মধ্যে দিয়েই ফাঁকফোকর খুঁজে যেতে হচ্ছে তাদের৻

যাত্রী পারাপারের থেকে অনেক বেশী ব্যস্ততা তাদের – যারা পণ্য পারাপার করেন। যশোর রোডের ওপরে কয়েক কিলোমিটার আগে থেকেই বাংলাদেশে রপ্তানি হওয়ার জন্য ট্রাকের দীর্ঘ সারি৻

অন্যদিকে ট্রাক টার্মিনাল থেকে একের পর এক ট্রাক ঢুকছে বেরুচ্ছে৻ রাস্তায় সবসময়েই যানজট৻ শয়ে শয়ে কুলি, ট্র্যান্সপোর্টার আর ক্লিয়ারিং এজেন্টদের ব্যস্ত চলাফেরা৻

ভারতীয় কাস্টমস আর সীমান্ত বাণিজ্যের সঙ্গে যুক্ত কর্মকর্তারাও বলছেন পেট্রাপোল সীমান্তের এই সার্বিক অব্যবস্থার ফলেই ক্রমশ কমছে বাণিজ্যের পরিমান৻

দীর্ঘদিন ধরে চলতে থাকা এই বাণিজ্য সমস্যার সমাধান করতে ভারত সরকার বেশ ক'বছর আগেই যাত্রী চলাচল আর পণ্য আমদানি-রপ্তানি ব্যবস্থাকে সুসংহত করতে পরিকল্পনা করে যে একটা ছাদের তলায় গোটা চেকপোস্টটাকে নিয়ে আসতে হবে৻

গতবছর অগাস্টে শিলান্যাস হয়েছিল নতুন আধুনিক চেকপোস্ট ভবনের – বর্তমান চেকপোস্টের ঠিক পেছনে৻

গত একবছরে সেখানে নিচু চাষের ক্ষেতে মাটি ফেলা হয়েছে আর তৈরি হয়েছে ক'টা কংক্রিট থাম৻

নতুন চেকপোস্ট ভবনের পরিকল্পনা আর বাস্তবায়ন করছে যে কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থা, সেই রাইটস-এর প্রকল্প কনসালট্যান্ট জে. কে. ভাট্টি ব্যাখ্যা করছিলেন, “বেনাপোল থেকে বনগাঁর দিকে যে রেললাইন গেছে, তার দক্ষিন দিকে পণ্য টার্মিনাল তৈরি হবে৻ আর লাইনের উত্তরে, যশোর রোডের গা ঘেঁষে বর্তমান যাত্রী টার্মিনালের জায়গায় তৈরি হবে নতুন যাত্রী টার্মিনাল৻ সেখানে একই ছাদের তলায় অভিবাসন, কাস্টমস – সব পরীক্ষা করে যাত্রীরা বেরিয়ে যেতে পারবেন৻''

সমন্বিত চেক পোস্টের নির্মাণকাজের অগ্রগতি

এক বছরে সমন্বিত চেক পোস্টের নির্মাণকাজের অগ্রগতি

''পণ্য আর যাত্রী – এই দুটোকে সম্পূর্ণ আলাদা করে দেওয়া হবে৻ আবার পণ্য টার্মিনালেও রপ্তানি আর আমদানীর এলাকা দুটো সম্পূর্ণ পৃথক থাকবে৻''

সীমান্ত বাণিজ্যের সঙ্গে যুক্ত মানুষজন মনে করছেন, নতুন ও সুসংহত চেকপোস্ট ভবন তৈরি হলে বাড়বে বাণিজ্য। সৃষ্টি হবে নতুন কর্মসংস্থানের৻

শুনতে ভাল লাগলেও প্রকল্পটিতে বেশ কিছু গলদ রয়েছে বলে অভিযোগ করলেন সীমান্ত বাণিজ্যের সঙ্গে যুক্ত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ক'জন কর্মকর্তা৻

তারা বলছেন, পণ্য বোঝাই ট্রাকগুলিকে রেল লাইনের ওপারে নিয়ে যাওয়াটাই ভুল পরিকল্পনা৻ লাইনের ওপরে কোনও সেতু তৈরি হবে না। তাই ট্রেন এলে গোটা বাণিজ্যই কিছুক্ষণের জন্য বন্ধ হয়ে যাবে৻

আবার যেখান দিয়ে ভারত থেকে রপ্তানি পণ্য টার্মিনালে ঢুকবে, সেই রাস্তা তৈরি করতে গেলে অন্তত তিনমাস সীমান্ত বাণিজ্য বন্ধ রাখতে হবে। কারণ বর্তমানের গুদামটির ভেতর দিয়ে সেই নতুন রাস্তা তৈরির পরিকল্পনা রয়েছে৻

কয়েকজন এই প্রসঙ্গও তুলছেন যে কলকাতা থেকে সীমান্ত অবধি যাওয়ার রাস্তা চওড়া না করে অথবা নতুন রাস্তা তৈরি না করে এ ধরনের অত্যাধুনিক স্থলবন্দর তৈরি করা অর্থহীন৻

কারণ মালবোঝাই ট্রাক তখনই বেশী সংখ্যায় সীমান্তে আসবে, যখন চওড়া রাস্তা পাওয়া যাবে৻

পরিকল্পনায় এসব কথিত ত্রুটি থাকা স্বত্ত্বেও কি প্রকল্পটি সময়সীমার মধ্যে শেষ করা যাবে?

মি. ভাট্টি দাবি করছিলেন যে তাঁরা ২০১৩ সালের মে মাস পর্যন্ত দেওয়া সময়সীমার মধ্যেই কাজ সম্পূর্ণ করতে পারবেন৻

কিন্তু প্রকল্পটি নির্মাণের ঠিকাদারি নিয়েছে যে সংস্থা, তার জেনারেল ম্যানেজার রমন ভৌমিক বলছিলেন তাঁদের কাজ শুরু করতেই প্রায় মাস ছয়েক দেরি হয়েছে৻ রয়েছে অন্যান্য সমস্যাও৻

সরকারি কর্মকর্তাদের মনেও সন্দেহ রয়েছে যে নতুন চেকপোস্ট আগামি বছরের মধ্যে শেষ হবে কী না৻

প্রকল্পের পরিকল্পনায় ত্রুটি, সড়ক না থাকা, বাণিজ্য সম্পূর্ণ বন্ধ করে দিয়ে নতুন ভবন তৈরির মতো অবাস্তব চিন্তা – এই সব মিলিয়ে অনেকেরই মতে পেট্রাপোলে নতুন সুসংহত চেক পোস্ট এখনও বিশ বাঁও জলে৻

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻